মূল্যবান জীবনের পথ

এই পৃথিবী একটা অস্থির জায়গা। আমরা দেখি, মানুষ ইতস্তত ছুটাছুটি করে চলেছে তাদের জীবনকে খুশী করার জন্য ধন-সম্পদ আয় করতেও অনেকে নিজেদের একান্তভাবে ব্যস্ত রাখে। অন্য অনেকে জগতের সব রকম ভোগ-বিলাসে নিজেদের সময় কাটায়। আবার কেউ কেউ অলস অবসর কাটাতে পছন্দ করে এবং কম খাটুনি করে বেশী অর্থ উপার্জন করতে চেষ্টা করে ও খেলাধুলায় বেশী সময় ব্যয় করে। তবুও তাদের আত্মা তৃপ্ত হয় না।

খেলার সরঞ্জাম, আনন্দ-স্ফূর্তি ও সম্পত্তির প্রতি তাদের আকর্ষণ অবশেষে শেষ হয়ে যায়।কারন প্রতিটা নতুন ভোগ-বিলাস ও তার চাহিদা কিছুদিন থাকে, কিন্তু আবার হারিয়ে যেতেও সময় লাগে না। তবু মনে হয় জীবনে আরো কিছু দরকার।

আমরা সকলেই কম-বেশি হতাশায় ভুগি। শারীরিক দোষ ত্রুটির জন্য আমাদের কাজকর্ম সীমিত হয়। পরিবারের লোকদের দেখাশুনা করতে হয়।অনভিজ্ঞতার কারনে আমরা আমদের চাকুরী বা পেশায় আটকে পড়ি এবং অন্য অনেকে কাজ করতে পারি না। আমরা টাকা-পয়সা খরচ করি, ঋণ করি, আর ভাবি- পরবর্তী সময় জীবনযাত্রা আরো সহজ হবে। বিয়ে করে আমরা যা আশা করি তা অনেক সময়ই পাই না। প্রায় অযথাই আমরা পরিপূর্ণতা ও উদ্দেশ্য খুঁজি।

এই কি আমাদের জীবনের সব? আমাদের জীবনে কি অর্থবহ কিছু থাকা উচিত নয়, যা আমাদের সন্তষ্টি এবং কোন স্থায়ী কিছু দিতে পারে? নিশ্চয়ই, এর একটা সমাধান আছে!

জীবন কি?

জীবনটা হচ্ছে একটা মূল্যবান কিছু সময় যা সৃষ্টিকর্তা আমদের জন্য নির্দিষ্ট করে দিয়েছেন। বাইবেল বলে, জীবন একটা ছায়ার মত, (১ বংশাবলি ২৯: ১৫), ঘাস ও ফুলের মত অল্প স্থায়ী, (১ পিতর ১: ২৪) এবং বাস্পমাত্র, (যাকোব ৪: ১৪ পদ)।

সম্পূর্ণ পাঠঃ মূল্যবান জীবনের পথ

আমরা যখন তরুন, তখন আমরা মনে করি, আমরা অনেকদিন বাঁচব। আর যখন বুড়ো হই, মনে হয় সময় খুব তাড়াতাড়ি চলে যাচ্ছে। হতে পারে, আমরা আমাদের প্রথম জীবনের উদ্দেশ্য অর্জন করতে ব্যর্থ। এইভাবে আমরা আমাদের জীবন সম্পর্কে হতাশ হই।

সমস্যাটা কি?

কোন্ বিষয়গুলি আমাদের আত্মাকে অসন্তষ্ট করে? জীবনটা আমাদের জন্য একটা সুযোগ, কিন্তু দায়িত্বও বটে। যে সব ভাল কাজগুলি আমরা করতে জানি অথচ করি না, তখন আমরা অসুখী হয়ে পড়ি। কোন মানুষের বিরুদ্ধে কোন পাপ করলেও অস্বস্থি ও অন্যায় বোধ আমাদের বিরক্ত করে।আমাদের নিজেদের পাপ, আমদের মনের শান্তি নষ্ট করে। আমরা আমাদের কাজের জন্য নিজেদেরই দায়ী করে থাকি।

অনেক মানুষ হৃদয়ে অনুভব করে যে, পৃথিবীতে অল্প কিছুকাল বেঁচে থাকার চেয়েও জীবনটা অনেক বড়। তাদের বোঝা দরকার যে এই মহা বিশ্বে মহৎ উদ্দেশ্যে কাজ করার জন্য একটা বড় আত্মিক শক্তি আছে। অথচ তারা হয়তো জানে না, তিনি কে?

অনেকেই তাদের জীবনের প্রতি অসন্তোষ প্রকাশ করে, কারন তারা আসলে ঈশ্বরীয় দৃষ্টিকোণ দিয়ে তাদের জীবনকে দেখতে ব্যর্থ হয়। তারা ঈশ্বরের ইচ্ছা সম্পর্কে ও মানুষের জন্য তাঁর উদ্দেশ্য সম্পর্কে ইচ্ছা করেই বুঝতে চায় না।

অনেক লোকই বিশ্বাসীদের অনন্তকালীন সুখ দেখতে

ব্যর্থ, আবার অন্যদিকে দুষ্ট ও অধার্মিকদের শেষ বিচারের  কথা জেনেও না জানার ভান করে। বাইবেলে পড়ুন (রোমীয় ৬ : ২০-২৩)।

পরিপূর্ণ জীবন

যোহন ১৬: ২৪ পদে যীশু বলেছেন, "এখনও পর্যন্ত তোমরা আমার নামে কিছুই চাও নি। চাও, তোমরা পাবে যেন তোমাদের আনন্দ পূর্ণ হয়।" একজন খ্রীষ্টিয়ানের জীবন থেকে যীশুর দেওয়া আনন্দ সহজে মুছে ফেলা যায় না।

কোন কোন সময় প্রলোভনে পড়ে আমাদের হৃদয় ভারাক্রান্ত হয়। কিন্তু পবিত্র আত্মার দেওয়া ফল হল আনন্দ; তা আমাদের অন্তরে থাকে এবং সকল প্রলোভনের ভিতর দিয়েও হৃদয়ের আরো গভীরে প্রবেশ করে। এতে হয়তো সব সময় আনন্দ করা যায় না, কিন্তু প্রভুর উপর শান্তভাবে বিশ্বাস রেখে প্রলোভনের সময় আমাদের স্থির থাকতে এবং যে কোন ঝড়কে জয় করতে সাহায্য করে।

হয়তো কেউ আপনাকে বলবে, খ্রীষ্টিয়ান জীবন-যাপনের পথ এত সীমাবদ্ধ যা ইচ্ছা মত উপভোগ করা যায় না। তারা চিন্তা করে, সুখী হতে হলে অবশ্যই যা খুশী তা-ই করেই সুখী হওয়া যায়। কিন্তু শুধু পরীক্ষামূলকভাবেই প্রভুর কাছে আসুন!

তাঁর সেবা করে আপনি আনন্দ পাবেন, যিনি আপনার জন্য প্রাণ দিয়েছেন। এতে আপনি আরো পরিস্কার বুঝতে পারবেন, যে নিজের সেবা করে সে-ই আসলে দাসত্বের বাঁধনে জড়ানো ; আর খ্রীষ্টের সেবক একজন স্বাধীন ব্যক্তি।

 

আমাদের সংগে যোগাযোগ করুন

ট্র্যাক্টস- এর জন্য আবেদন

ঈশ্বরের উপহার – আপনার জন্য

Jesus in a manger

সময়কাল  শুরু হবার আগে থেকেই ঈশ্বর, তার একজাত পুত্র যীশু এবং পবিত্র আত্মার ছিলেন। তাঁরা পৃথিবী ও তার মধ্যে যা কিছু রয়েছে সব কিছুরই সৃষ্টি করেছেন। তার ভালবাসায়, ঈশ্বর তার নিজ প্রতিমূর্তিতে মানুষ সৃষ্টি করে তাকে এক অপূর্ব বাগান রেখেছিলেন। মানুষ ঈশ্বরের নির্দেশগুলির অবাধ্য হয়েছিল। এই অবাধ্যতাই ছিল পাপ এবং ঈশ্বর থেকে মানুষকে বিচ্ছিন্ন করেছিল। তিনি তাদের পাপ মোছনের জন্য নিখুঁত কম বয়সী পশু বলি দিতে বলেছিলেন। এই সমস্ত বলিদান তাদের পাপের দেনা শোধ করেনি কিন্তু এক চূড়ান্ত বলিদানের ইঙ্গিত দিয়েছিল যা ঈশ্বরীঈ জোগাবেন। একদিন ঈশ্বর তাঁর পুত্র যিশুকে সকল মানুষের পাপের মোচনের জন্য চূড়ান্ত বলিদান স্বরূপ এ জগতে পাঠাবেন। 

মরিয়ম এবং স্বর্গদূত

The angel speaks to Mary

চার হাজার বছর পরে, নাসরৎ নগরে মরিয়ম নামে এক কুমারী স্ত্রীলোক বাস করত। জোষেফের সঙ্গে বিয়ে হওয়ার জন্য তাঁর বাগদান হয়েছিল। একদিন এক স্বরগদূত মরিয়মের সামনে আবির্ভূত হয়ে তাঁকে বলেছিলেন তিনি এক বিশেষ শিশুর জন্য দেবেন। তিনি তাঁর নাম রাখবেন জিশু। এই শিশুর কোন পার্থিব বাবা থাকবে না। তিনি হবেন ঈশ্বরের একজাত পুত্র।

যীশুর জন্ম 

সম্পূর্ণ পাঠঃ ঈশ্বরের উপহার – আপনার জন্য

The star shining over Bethlehem

স্বর্গদুত চলে যাবার পর, যোষেফ ও মরিয়মকে তাদের কর দেবার জন্য বেথলেহমের পথে দীর্ঘ যাত্রা করতে হয়েছিল। যখন তাঁরা বেথলেহমে পউচালেন, দেখলেন বিরাট জনতায় শহর পরিপূর্ণ। তাদের এক আস্তাবলে রাত কাটাতে হয়েছিল কারণ ওই সরাইখানায় কোন ঘর খালি ছিল না। সেখানেই যীশু জন্মেছিলেন। মরিয়ম কাপড়ের পাট দিয়ে শিশু যীশুকে মুড়ে এক যাব পাত্রে শুইয়ে দিয়েছিলেন। 

মেষপালকগণ 

Angels bring glad tidings to the shepherds

ওই রাতেই, শহরের বাইরে এক পাহাড়ে মেষপালকেরা তাদের মেষ পাহারা দিচ্ছিল। এমন সময়ে এক স্বর্গদূত আবির্ভূত হয় এবং ঈস্বরের প্রতাপ মেষপালকদের চারপাশে দেদীপ্যমান হয়ে উঠে। স্বর্গদূত বলেছিল, “ভয় পেয়ো না। আমি সকল মানুষের কাছে এক মহানন্দের সুখবর এনেছি। এই রাতে এক পরিত্রাতার জন্ম হয়েছে, তিনি প্রভু যীশু খ্রিষ্ট। তোমরা গিয়ে যাব পাত্রে কাপড়ের পাট দিয়ে জড়ানো শোয়ানো অবস্থায় এক শিশুকে দেখবে।“ তারপর অনেক দূতেরা আবির্ভূত হয়ে ইশ্বরের গৌরব ও প্রশংশা করতে করতে বলে উঠল “ঊর্ধ্বলোকে ইশ্বরের মাহিমা, প্রিথিবিতে তাহাঁর প্রিতিপাত্র মানুস্যদের মধ্য শান্তি।“ যখন স্বর্গদূতেরা চলে গেল, মেষপালকেরা তাদের মেষদের ছেড়ে শীঘ্রই বেথলেহমে গিয়েছিল। সেখানে গিয়ে তারা শিশুটিকে দেখতে পেল যেমনটা স্বর্গদূতেরা বলেছিল।

পণ্ডিতগণ

The wise men bring their gifts

যীশু জন্মগ্রহণ করার পরে, অন্য দেশ থেকে পণ্ডিতেরা জেরুজালেমে গিয়েছিলেন। তারা জিজ্ঞাসা করেছিলেন, “ইহুদিদের রাজা সেই শিশু কোথায়? আমরা প্রাচ্যদেশে তাঁর তারা দেখেছি এবং তাঁকে আরাধনা করতে চাই।“ যখন রাজা হেরোদের কানে এ কথা গেল, তিনি খুশি হননি। তিনি যাজকদের ও ব্যবস্থার অধ্যাপকদের ডাকলেন। তাঁরা তাঁকে জানালেন ভাববাদীরা বলেছেন বেথলেহমে এক শাসনকর্তা  জন্ম নেবেন। রাজা হেরোদ এই রাজার অনুসন্ধান করতে পান্দিতদের বেথলেহমে পাঠিয়ে দিলেন। পন্দিতেরা জেরুজালেম ত্যাগ করার সময় সেই তারাটি তাদের পরিচালনা করে সেই ঘরে নিয়ে গেল যেখানে তারা শীশু জিশুকে খুঁজে পেলেন। তাঁরা নতজানু হয়ে তাঁকে ভুক্তি শ্রদ্ধা জানিয়ে সোনা, কুন্দুরু, ও গন্ধরস উপহার দিলেন। ঈস্বর এক স্বপ্নের মাধ্যমে পণ্ডিতদের সতর্ক করেছিলেন যে তাদের ওই দুস্ত রাজা হেরোদের কাছে যাওয়া উচিত নয়, তাই তাঁরা অন্য দিয়ে নিজেদের দেশে ফিরে গিয়েছিলেন। 

ঈশ্বরের উপহার দেওয়ার কারণ

যীশু ঈশ্বরের একজাত পুত্র ছিলেন। তিনি নিস্পাপ জীবন জাপন করেছেন এবং তাঁর সকল পন্থায় তিনি ছিলেন নিখুত। ত্রিশ বছর বয়সে, যীশুর পিতা, ঈশ্বর সম্বন্ধে লোকদের শিক্ষা দিতে শুরু করেন। তিনি দৃষ্টিহীনকে পুনরায় দৃষ্টি  দান, নানা প্রকার রোগ থেকে লোকদের সুস্থতা দান এবং এমনকি মৃত ব্যক্তিকে পুনর্জীবন দান করার মত বত্থ অলৌকিক কাজ করেছেন। সর্বোপরি, তিনি স্বর্গে অনন্ত জীবন কাটানোর উপায় সম্বন্ধে শিক্ষা দিয়েছেন। তারপর তিনি সমগ্র জগতের পাপমোচনের জন্য এক বলিদান স্বরূপ নিজের জীবনকে বলি দিয়েছেন। 

বাইবেলের যোহন ৩:১৬ পদে বলা হয়েছে, “কারণ ঈশ্বর জগৎকে এমন প্রেম করিলেন যে, আপনার একজাত পুত্রকে দান করিলেন, যেন যে কেহ তাহাঁতে বিশ্বাস করে, সে বিনাষ্ট না হয়, কিন্তু অনন্ত জীবন পায়।“ যিশু এক সরবোচ্চ সর্বোচ্চ বলিদান স্বরূপ ক্রুশে মৃত্যুতে সমস্ত পাপের দেনা শোধ হয়েছে। পাপের মোচনের জন্য আর কোন বলিদানের প্রয়োজন নেই। এটাই ছিল পরিত্রাতাকে পাঠানো ঈশ্বরীয় প্রতিজ্ঞার পূর্ণতা। 

Jesus on the cross

দুষ্ট লোকদের দ্বারা যীশু নিহত হলেও তাঁর ওপরে মৃত্যুর কোন কর্তৃত্ব ছিল না। তিনদিন পরে তিনি কবর থেকে বিজয়ী হয়ে পুনরুত্থি হয়েছিলেন। পুনরুত্থানের পর বেশ অনেকদিন ধরে যিশু বহু লকের সামনে আবির্ভূত হয়েছিলেন। তারপর একদিন, তাঁর অনুগামীদের আশীর্বাদ করে স্বর্গারোহন করেন।

আমরা যখন যীশুকে বিশ্বাস করতে এবং আমাদের জীবন তাঁর কাছে সমর্পণ করার সিদ্ধান্ত নিই, তখন তাঁর রক্ত আমাদের সমস্ত পাপ থেকে আমাদের শুচি করে। আমরা যখন পরিত্রানের এই উপহার গ্রহণ করি, তখন আমরা ঈশ্বরের সঙ্গে পুনর্মিলিত হই। যিশু হন্ আমাদের ব্যক্তিগত পরিত্রাতা এবং আমরা তাঁর সন্তান হওয়ার সকল আশীর্বাদ উপভোগ করি। একদিন যিশু আবার ফিরে আসছেন। তিনি সকল প্রকৃত বিশ্বাসীদের স্বর্গ নিয়ে যাবেন। সেখানে তাঁরা চিরকাল ঈশ্বরের সঙ্গে বাস করবে।

আমাদের সংগে যোগাযোগ করুন

ট্র্যাক্টস- এর জন্য আবেদন

মৃত্যুর পর?

এই মুহূর্তে আপনি বেঁচে আঁচেন; আপনি নিঃশ্বাস নিচ্ছেন; প্রতিদিনই কিছু খাচ্ছেন ও জল পান করছেন। আমরা চলাফেরা কর অথবা কাজ কর এবং ঘুমাই। হয়ত আমরা আরামে জীবন কাটাই অথবা কষ্টে থাকি। সূর্য উঠে আবার অস্ত যায়; কোথাও একটি শিশু জন্ম নিচ্ছে, কিন্তু আবার কোথাও প্রতিদিনই কেউ না কেউ মারা যাচ্ছে।

পুরো জীবনটাই একটা অস্থায়ী ব্যবস্থা

কিন্তু

মৃত্যুর পর আমি কোথায় জাই

যদিও আমি একজন নামমাত্র খ্রিষ্টীয়ানঃ

অথবা একজন মুসলমান, অথবা একজন হিন্দু,

অথবা একজন বৌদ্ধ, অথবা একজন ইহুদী,

অথবা অন্য কোন ধর্মের কেউ

অথবা কোন ধর্মে বীশ্বাস করি না।

অথাপি আমাদের এই অত্যন্ত প্রয়োজনীয় প্রশ্নের উত্তর ঠিক  করা করকার, কারণ পৃথিবীতে অল্পদিন থাকার পর, মানুষকে তার চিরকালের বাসস্থানে চলে যেতে হবে।

কিন্তু কোথায়?

কারনঃ যেখানে আপনাকে কবর হবে, সেখানে আপনার আত্নার কবর হবে না, অথবা আপনার শরীর যদি কোন বন্য পশু অথবা পাখি খেয়ে ফেলে, এটি আপনার আত্না খেতে পারে না, যদি আপনার শরীর শ্নশানে পুড়য়ে ফেলা হয়, আপনার আত্না পুড়ে ছাই না, অথবা আপনি যদি সাগরের অতল গভীরে ডুবে জীবন হারান, আপনার আত্না ডুবে যাবে না।

আপনার আত্না কখনও মরবে না

স্বর্গে ও পৃথিবীর ঈশ্বর বলেন,

সম্পূর্ণ পাঠঃ মৃত্যুর পর?

“সমস্ত প্রাণ আমার”

আপনি যখন এই জগতে বেঁচে ছিলেন, তখন ভাল বা মন্দ যা-ই করেছেন,আপ্নার করা কাজের হিসাব মৃত্যুর পর ‘আপনাকে’ অর্থাৎ আপনার আত্নাকে দিতে হবে।

আমরা হয়ত দিশ্বাস্তভাবে উপাসনা করি।

আমরা হয়ত আমাদের করা খারাপ কাকের জন্য দুঃখিত হই।

আমরা হয়ত চুরি করা জিনিস ফিরিয়ে দিই।

নিশ্চয়ই এসব খুব দরকারী –

কিন্তু

আমরা আমাদের নিজ পাপের পায়শ্চিত্ত করতে পারি না।

স্বর্গের ঈশ্বর, সারা পৃথিবীর ধার্মিক বিচারক আপনার পাপ ও জীবন জানেন-, তাঁর কাছে কিছুই লুকানো নয়। আপনি, আপনার পাপ নিয়ে কখনও আগামী জগতের (স্বর্গের) পরমসুখ ও গৌরবের মধ্যে প্রবেশ করতে পারবেন না।

কিন্তু

এই একই স্বর্গের ঈশ্বর হলেন ভালবাসার ঈশ্বর। আপনার জীবন ও আত্না উদ্ধারের জন্য তিনি এক পথ প্রস্তুত করেছেন। আপনি যদি ঈশ্বরের কাছে প্রার্থনা করেন ও আপনার পাপ স্বীকার করেন, আপনাকে অনন্ত বিচারে ও নরকের আগুনে আভিশপ্ত করা হবে নাল ঈশ্বর তাঁর পুত্র যীশু খৃষ্টের মাধ্যমে আপনাকে ক্ষমা করবেন।

এই যিশু আপনার মন্দ কাজের জন্য শাস্তি পেয়েছেন এবং যদি আপনি এই যিশু ও একমাত্র প্রভুর কাছে উপাসনা ও প্রার্থনা করেন, তিনি আপনার জিবনে শান্তি দেবেন এবং মৃত্যুর পরে এক গৌরবময় জীবন দেবেন। কিন্তু এই যীশু-জিবন্ত ঈশ্বরের পুত্র, অবশ্যই প্রথমে আপনার ব্যক্তিগত উদ্ধারকর্তা হবেন। শুধুমাত্র তকনই আপনি আপনার আত্নার জন্য মহা আনন্দ ও সাত্বনার এক অনন্ত বাসস্থান নিশ্চিত করতে পারেন। কিন্তু হাই! যারা এই জীবনকালে যীশুর উদ্ধারকারী ভালবাসাকে গ্রহন করে নাই, তাদের জন্য কঠিন বিচার ও অনন্ত আগুন অপেক্ষা করেছে। মৃত্যুর পর কিছুতেই মন ফিরানো যাবে না ও রক্ষা পাওয়া যাবে না। “পরে তিনি তাঁর বাঁ দিকের লোকদের বলবেন, “ওহে অভিশপ্ত লোকেরা আমার কাছ থেকে তোমরা দূর হও। সয়তান ও তার দূতদের জন্য যে চিরকালের আগুন প্রস্তুত করা হয়েছে তার মধ্যে যাও।“ (মথি ২৫:৪১ পদ)। “ঐ অপদার্থ দাসকে তোমরা বাইরের অন্ধকারে ফেলে দাও; সেখানে লোকে কান্নাকাটি করবে আর যন্ত্রণায় দাঁতে দাঁত ঘষতে থাকবে।“ (মথি ২৫:৩০ পদ)।

পবিত্র বাইবেলে ঈশ্বর পৃথিবীতে আগত শেষ বিচারের বিষয়ে অনেকার সতর্ক করেছেন। এই পবিত্র বাক্যগুলিতে এই বিষয়ে ভবিষ্যতবাণী বলা হয়েছে যে, স্নরনীয় বিচারের দিনের পূর্বে সুস্পষ্টভাবে বোঝা যাবে ও বাইবেলে লিখীত চিনহ্ন দেখা যাবে।

যীশু আসার আগে জুদ্ধ হবে ও জুদ্ধের কলরব, দুর্দ্দশা ও জাতিদের মধ্যে জটিলতা দেখা দেবে-তা হল, এক জাতি অন্য জাতির বিপক্ষে যুদ্ধ করবেন- এবং মনোভাব ও মতের বিভেদ মেটাবার কোন পথ খুঁজে পাবে না।

বিভিন্ন জায়গায় ভূমিকস্প হবে ও মহামারী দেখা দেবে। সম্প্রতি বছরগুলিতে এইগুলি প্রচুর পরিমাণে ঘটছে। বাইবেলে আগেই বলা হয়েছে, মন্দ লোকেরা আরও মন্দ হতে থাকবে।। এই আগেই বলা হয়েছে, মন্দ লোকেরা আরও মন্দ হতে থাকবে। এই সময়ে লোকেরা সাবধান হবে না কিন্তু ঈশ্বরকে ভালবাসার চেয়ে বরং আমোদ-প্রমোদ করতেই বেশী ভালবাসবে। বাইবেলে পড়ুন, (মাথি ২৪:৬, ৭, ও ১২ পদ)।

আসুন, মনে রাখি যে আমাদের ন্যায় ও মহান বিচারক ঈশ্বর আমাদের বর্তমান সম্পদ অথবা দারিদ্র্যতা, সুনাম অথবা অসম্নান, রং, কুল, জাতি অথবা ধর্মমতের দ্বারা প্রভাবিত হবেন না। একদিন আমরা আমাদের মহান সৃষ্টিকর্তা ও প্রভুর দ্বারা আমাদের করা কাজের কারণে বিচারিত হওয়ার জন্য, তাঁর সামনে দাঁড়াব। বাইবেলে পড়ুন, (মাথি ২৫:৩২, ৩৩ পদ)।

সীমাহীন অনন্তকালে কোন ঘড়ি থাকবে না, থাকবে নাকোন বার্ষিক দিনপঞ্জিকা ও শতাব্দীর হিসাব।

পাপী ও অবিশ্বাসীদের যন্ত্রণার ধুয়া চিরকাল উপরে উঠতে থাকবে-একই সময়ে উদ্ধারপ্রাপ্তরা স্বর্গে সীমাহীন আনন্দ করবে, গান গাইবে, পরমসুখে, ও আরামে থাকবে।

আপনি একনই পছন্দ করুন! তা না হলে হয়ত বেশী দেরী হয়ে যাবে। “দেখ, এখনই উপযুক্ত সময় আজই উদ্ধার পাবার দিন।“ বাইবেলে পড়ন, (২ করিন্থীয় ৬:২ খ পদ এবং মথি ১১:২৮-৩০ পদ)।      

 

আমাদের সংগে যোগাযোগ করুন

ট্র্যাক্টস- এর জন্য আবেদন